Home / খেলাধুলা / আজ পারবে কী বাংলাদেশ!

আজ পারবে কী বাংলাদেশ!

প্রত্যাশার কমতি ছিল না ওয়ানডে সিরিজ নিয়ে। টেস্ট সিরিজে বাজেভাবে হারের পরও সীমিত ওভারে গত কয়েক বছরের পারফরম্যান্স আশা জাগিয়েছিল বাংলাদেশি ভক্তদের মনে। যদিও আশার সেই বেলুন ফুটো হয়ে যায় কিম্বার্লিতে ১০ উইকেটে হেরে। দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিংয়ের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি বাংলাদেশের বোলাররা। চরম হতাশায় শুরু হওয়া ওয়ানডে সিরিজে টিকে থাকার লড়াই এখন সফরকারীদের। বুধবার পার্লের বোল্যান্ড পার্কের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে সে জন্য জয় ছাড়া কোনও পথ খোলা নেই মাশরাফিদের।

টেস্ট র‌্যাংকিংয়ের দ্বিতীয় স্থানে দক্ষিণ আফ্রিকা, আর বাংলাদেশ রয়েছে নবম স্থানে। র‌্যাংকিংয়ের এই ব্যবধানই বলে দেয় দুই দলের অবস্থান। যার প্রমাণ পাওয়া গেছে মাঠের ক্রিকেটেও। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথমটিতে ৩৩৩ রানের বড় ব্যবধানে হারের পর দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে কোনও প্রতিরোধই গড়তে পারেনি টাইগাররা, ইনিংস ও ২৫৪ রানে হেরে ২-০ ব্যবধানে হেরেছে টেস্ট সিরিজ।

টেস্টে ব্যর্থ হলেও ওয়ানডেতে ভালো করার প্রত্যয় ছিল বাংলাদেশের সব খেলোয়াড়ের মনে। যদিও ২২ গজের লড়াইয়ে সেটা মোটেও দেখাতে পারেননি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ রানের স্কোর (৭ উইকেটে ২৭৮) গড়েও হারতে হয়েছে ১০ উইকেটে। কুইন্টন ডি ককের হার না মানা ১৬৮ রানের সঙ্গে হাশিম আমলার অপরাজিত ১১০ রানের ওপর ভর দিয়ে ৪২.৫ ওভারে সহজ জয় নিশ্চিত করে প্রোটিয়ারা।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের ব্যর্থতার বৃত্ত ভাঙতে বুধবার দ্বিতীয় ওয়ানডেতে নামছে বাংলাদেশ। সিরিজ বাঁচানোর এই লড়াইয়ের আগে আবার চোটের ধাক্কায় জর্জরিত টাইগার ক্যাম্প। চোটের কারণে প্রথম ওয়ানডেতে খেলতে পারেননি তামিম ইকবাল ও মোস্তাফিজুর রহমান। কিম্বার্লির ওই ম্যাচেই আবার এসেছে আরেকটি দুঃসংবাদ। হ্যামস্ট্রিংয়ে টান পড়ায় সেঞ্চুরিয়ান মুশফিকুর রহিমকে প্রোটিয়াদের ব্যাটিংয়ের প্রায় ‍পুরোটা সময় কাটাতে হয়েছে ড্রেসিংরুমে। বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়কের খেলা নিয়ে তাই জন্মেছে সংশয়।

চোটের সঙ্গে দুশ্চিন্তাটা বাংলাদেশের বোলিং নিয়েও। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে টেস্ট সিরিজে মোটেও সুবিধা করতে পারেননি বোলাররা, প্রথম ওয়ানডেতে তো আরও ব্যর্থ। মাশরাফি বিন মুর্তজা, রুবেল হোসেন, তাসকিন আহমেদ ও সাইফউদ্দিনের সব চেষ্টা ভেস্তে গেছে ডি কক-আমলার অসাধারণ ব্যাটিংয়ে। কঠিন সময়ে বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি তাকিয়ে থাকে যার দিকে, সেই সাকিব আল হাসানও ছিলেন নিজের ছায়ায় বন্দী। টেস্ট থেকে আপাতত বিশ্রামে থাকা বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার কিম্বার্লির ম্যাচ দিয়েই আবার নেমেছিলেন বাংলাদেশের জার্সিতে।

আশা হারাচ্ছেন না অবশ্য মাশরাফি। বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক প্রথম ম্যাচে হারের পর জানিয়েছিলেন, লড়াই চালিয়ে যাবেন তারা। তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০-তে পিছিয়ে পড়ায় পার্লের ম্যাচটি আরও ‍গুরুত্বপূর্ণ সফরকারীদের জন্য। জিততে না পারলে যে আজই হাতছাড়া হয়ে যাবে ওয়ানডে সিরিজ!

Check Also

আইসিসি থেকে অস্ট্রেলিয়ার সমান টাকা পাবে বাংলাদেশ

২০১৪ সালে তিন মোড়ল তত্ত্ব পাশ হওয়ার পর আইসিসির আয়ের সিংহভাগই পেত ভারত। এছাড়া এর …

Leave a Reply

Your email address will not be published.