Home / স্বাস্থ্য / পরিচ্ছন্নতার অভাবে পুরুষাঙ্গের ক্যান্সার বেড়েই চলেছে

পরিচ্ছন্নতার অভাবে পুরুষাঙ্গের ক্যান্সার বেড়েই চলেছে

a433কাঁথির বাসিন্দা ব্রজেশ পণ্ডা৷ বছর পঁয়তাল্লিশের এই কৃষিজীবী ভুগছিলেন গোপন রোগ নিয়ে৷ পুরুষাঙ্গে ঘা৷ প্রথমে গ্রামের এক হাতুড়ের কাছে গিয়েছিলেন৷ হরেক মলম লাগিয়েও কাজের কাজ হয়নি৷ সঙ্কোচে কাউকে মন খুলে কিছু বলতেও পারছিলেন না৷ দেখতে দেখতে বছর ঘুরে যায়৷ একদিন একাই হাজির হন এনআরএস মেডিক্যাল কলেজে৷ সেখানকার ওষুধেও সারেনি ঘা৷ পরে পুরুষাঙ্গের ঘা হওয়া অংশ কেটে বাদ দেন সার্জেন৷ প্রথামাফিক, পুরুষাঙ্গের ক্ষতিগ্রস্ত টিস্যু পরীক্ষা হলে জানা যায় , ব্রজেশে পুরুষাঙ্গে ক্যান্সার হয়েছে৷ মাথায় আকাশ ভাঙে পরিবারের৷ শুরু হয় ক্যান্সারের চিকিত্সা৷ চিকিত্সকরা বলছেন , ব্রজেশ পণ্ডা কিন্ত্ত একা নন৷ রোগটাও বিরল নয়৷ এ রাজ্যে পুরুষাঙ্গের ক্যান্সারে ভুগছেন , এমন বহু মানুষ রয়েছেন৷ শল্য চিকিত্সকরা আরও জানাচ্ছেন , কলকাতার পাঁচটি মেডিক্যাল কলেজ ও ক্যান্সার চিকিত্সা কেন্দ্রে অন্তত ১৫ জন করে রোগী চিহ্নিত হন প্রত্যেক মাসে৷

এর প্রায় দ্বিগুণ সংখ্যক চিহ্নিত হন জেলাস্তরের হাসপাতালে৷ এবং পুরুষাঙ্গের ক্যান্সারে আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে এ রাজ্যে৷ সঙ্কোচ থেকেই লোকে দেরিতে ডাক্তারবাবুর কাছে যান বলে বেড়ে যাচ্ছে ক্যান্সার হওয়ায় আশঙ্কাও৷ বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন , এইচআইভি -র মতো পুরুষাঙ্গের ক্যান্সারও থাবা বসাচ্ছে অসুরক্ষিত যৌন সংসর্গের জেরে৷ অর্থাত্, পুরুষাঙ্গের এই দুরারোগ্য ব্যাধির নেপথ্যে রয়েছে মহিলাদেরও অবদান৷ কেননা , জরায়ুমুখের ক্যান্সার থেকেই এ রোগ ছড়ায়৷ তাই চিকিত্সকদের উদ্বেগ — যে হারে বেড়ে চলেছে জরায়ুমুখের ক্যান্সার , বিশেষত গ্রামাঞ্চলে , তাতে স্বাভাবিক নিয়মেই পুরুষাঙ্গের ক্যান্সার বাড়ার আশঙ্কা সমানুপাতিক হারে৷ কী ভাবে থাবা চওড়া করছে পুরুষাঙ্গের ক্যান্সার ? চিকিত্সকদের বক্তব্য , এর নেপথ্যে রয়েছে পুরুষাঙ্গে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী দু’টি বিশেষ ভাইরাসের সংক্রমণ — হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস (এইচপিভি ) এবং হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস -২ (এইচএসভি -২)৷ এবং তা ছড়ানোর অন্যতম বড় উত্স হল মহিলাদের জরায়ুমুখ ক্যান্সার৷
চিত্তরঞ্জন ন্যাশনাল ক্যান্সার ইনস্টিটিউটের (সিএনসিআই ) মেডিক্যাল সুপার জহর মজুমদার বলেন , ‘ওই দু’টি ভাইরাসে সংক্রমিত মহিলাদের সঙ্গে যৌন সংসর্গ যদি অসুরক্ষিত হয় , তখন সহজেই সংক্রমণটি নারীশরীর থেকে পুরুষাঙ্গে ছড়িয়ে পড়ে৷ ’ তবে পুরুষাঙ্গের পরিচ্ছন্নতা মেনে চললে এ বিপদ যে অনেকটাই ঠেকানো সম্ভব , তা -ও মনে করিয়ে দিয়েছেন তিনি৷ ‘কন্ডোম ব্যবহার করলে এই ঝুঁকি এড়ানো সম্ভব ,’ মন্তব্য জহরের৷ কিন্ত্ত মুশকিল হচ্ছে , পুরুষাঙ্গের পরিচ্ছন্নতা না -মেনে চলা লোকের সংখ্যা যেমন বেশি , তেমনই আবার নিজের জরায়ুমুখের সংক্রমণ সম্পর্কেও সিংহভাগ ক্ষেত্রে সচেতনই থাকেন না অধিকাংশ মহিলা৷ ফলে অজান্তে এবং সচেতনতার অভাবেই যেমন বাড়ছে জরায়ুমুখের ক্যান্সার , তেমনই আবার সেই সূত্রেই আশঙ্কা বাড়ছে পুরুষাঙ্গের ক্যান্সারেরও৷ এনআরএসের সার্জারি বিভাগের প্রধান সুশীলরঞ্জন ঘোষ বলেন , ‘প্রত্যেক মাসেই পুরুষাঙ্গের ক্যান্সার নিয়ে বহু রোগী এখানে আসেন৷ সংখ্যাটা ২০ -র কম তো নয়ই৷ ’ সিএনসিআইয়ের মেডিক্যাল সুপার জহর মজুমদারে একই অভিজ্ঞতা৷ ঠাকুরপুকুরের সরোজ গুন্ত ক্যান্সার সেন্টারের অধিকর্তা অর্ণব গুপ্তের ব্যাখ্যা , ‘রাজ্যে পুরুষাঙ্গের ক্যান্সারে ঠিক কতজন আক্রান্ত , তা নিয়ে বিস্তারিত তথ্য নেই৷

তবে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে যে পুরুষাঙ্গের ক্যান্সারও বাড়ছে , তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷ ভবিষ্যত সংক্রমণ ঠেকাতে পাঁচ বছরের কম বয়সেই শিশুর পুরুষাঙ্গের সামনের চামড়া কেটে বাদ দিলে ভালো৷ ’ কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের অঙ্কো -সার্জারি বিভাগের প্রধান সৌরভ ঘোষ বলেন , ‘পুরুষাঙ্গের সংক্রমণ এই রোগের প্রথম উপসর্গ৷ পুরুষাঙ্গের ত্বকের তলায় দীর্ঘ দিনের ঘা থাকলেও চিকিত্সকের কাছে যাওয়া জরুরি৷ ’ তাঁর আক্ষেপ , পুরুষাঙ্গ নিয়ে সকলেই সংবেদনশীল , তবু বহু রোগী সঙ্কোচ ও অর্থনৈতিক কারণে অনেক দেরি করে ফেলেন৷ বর্তমানে সংখ্যার নিরিখে প্রথম সারিতে রয়েছে ফুসফুস ক্যান্সার , প্রস্টেট ক্যান্সার , স্তন ক্যান্সার ও জরায়ুমুখ ক্যান্সার৷ এই সব ক্যান্সারে আক্রান্তদের সংখ্যাও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে৷ তাই সচেতনতা প্রচারের নিরিখে বিশেষ কল্কে পায় না পুরুষাঙ্গের ক্যান্সার৷ স্বাভাবিক ভাবেই এই ক্যান্সারের প্রতিরোধ নিয়ে সচেতনতা জনমানসে তলানিতেই৷ চিকিত্সকদের আক্ষেপ , ‘হেভিওয়েট ’ ক্যান্সারের ভিড়ে হারিয়ে যায় ‘সংখ্যালঘু’ পুরুষাঙ্গের ক্যান্সার৷ বস্ত্তত এ ক্যান্সার উপেক্ষিতই৷ তাই আক্রান্তদের নিয়ে কোনও সুসংহত পরিসংখ্যানও তৈরি হয়নি৷ সামগ্রিক তথ্য নথিভুক্ত করার প্রয়াসও অধরা৷ সেই ফাঁকেই বাড়ছে রোগীর সংখ্যা৷

Check Also

রাতে ভালো ঘুমের জন্য যা করবেন

রাতে ঘুম না আসার সমস্যায় ভোগেন অনেকেই। আপনারও কি রয়েছে সমস্যা? রাতে বিছানায় শুয়ে এ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.